Uddokta.com

উদ্যোগের আদ্যোপান্ত

যে ৫ টি জিনিস উদ্যোক্তাদের ঘুম থেকে জেগেই করা উচিত

More Share, More Care!

 

সফল উদ্যোক্তা হওয়া কখনই সহজ বিষয় নয়।এর জন্য প্রয়োজন অনেক ত্যাগ, পরিশ্রম আর অধ্যবসায়। ধীরে ধীরে প্রতিটা দিনকে সফলভাবে কাজে লাগানোর মাধ্যমেই একজন উদ্যোক্তা সফলতার মুখ দেখেন। তাই ঘুম থেকে জেগে উঠেই কিছু ভালো অভ্যাস গড়ে তোলা প্রয়োজন। এখানে যে ৫ টি জিনিস উদ্যোক্তাদের ঘুম থেকে জেগেই করা উচিত সেগুলো নিয়ে বিস্তর আলোচনা রয়েছে। আশা করি এগুলো অনুসরণ করে আপনার উদ্যোক্তা জীবন অনেকখানি সহজ হবে।

যে ৫ টি জিনিস উদ্যোক্তাদের ঘুম থেকে জেগেই করা উচিত:

একজন সফল উদ্যোক্তা হতে হলে অবশ্যই কঠোর পরিশ্রম করার মন-মানসিকতা রাখতে হবে। এর পাশাপাশি সকালের রুটিনকে করতে হবে স্বাস্থ্যসম্মত। দিনের শুরুটা সুন্দর হলে সারাদিন কাজের প্রতি একটা আগ্রহ কাজ করবে। তাই চলুন জেনে নেয়া যাক কোন ৫টি জিনিস উদ্যোক্তাদের ঘুম থেকে জেগেই করে ফেলা উচিত।

১। প্রতিদিন একই সময়ে ঘুম থেকে ওঠা:

উদ্যোক্তাদের নিয়মিত একই সময়ে ঘুম থেকে জেগে ওঠা উচিত। এতে করে শরীর ও মন দুটোই সতেজ থাকে। প্রতিদিন একই সময়ে উঠলে সব কাজের সুন্দর ব্যালেন্স করা সম্ভব। এছাড়া প্রতিদিন খুব ভোরে উঠে প্রকৃতির মুক্ত বাতাসে কিছুক্ষণ থাকলে ব্রেইন খুব ভালো কাজ করে এবং দিনের পুরোটা সময় ক্লান্তি কম লাগে।

২। মেডিটেশন করা বা সৃষ্টিকর্তাকে ডাকা:

মেডিটেশন করা এবং সৃষ্টিকর্তাকে ডাকা সফল জীবনের মূলমন্ত্র। মেডিটেশনের মাধ্যমে মনকে একদম শান্ত করা যায়, মনকে এক জায়গায় স্থির করা যায়। মনোযোগ বৃদ্ধিতেও মেডিটেশন অনেক বেশি সহায়ক। এছাড়া নিজ নিজ ধর্ম অনুযায়ী সৃষ্টিকর্তাকে ভোরবেলা নিয়মিত ডাকার মাধ্যমে তাঁর প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করা যায়। এতে করে মন শান্ত এবং প্রসারিত হয়। দৈনন্দিন কাজেও নিবিড়ভাবে মন দেয়া যায়।

৩। সারাদিনের কাজের একটা তালিকা তৈরি করা:

উদ্যোক্তা জীবনে কাজের শেষ থাকে না। সারাদিন একের পর এক কাজ করে যেতেই হয়। একারণে অনেক কাজের ভিড়ে অনেক সময় দেখা যায় অনেক কাজ ভুলে যাবার মতো সমস্যাও দেখা দেয়। আবার এতো কাজের চাপে কাজগুলোকে বোঝা মনে হতে পারে। এজন্য সব থেকে ভালো হয় যদি সকালে ঘুম থেকে উঠে অন্যান্য প্রয়োজনীয় কাজগুলো শেষ করার পরপরই সারাদিনের কাজের একটা তালিকা তৈরি করা যায়। একটার পর একটা কাজের তালিকা করা থাকলে কাজ ভুলে যাবার সম্ভাবনা থাকে না। কাজগুলো করতেও সুবিধা হয়।

৪। সময়মতো সকালের খাবার খাওয়া এবং পানি পান করা:

সকালে ঘুম থেকে উঠে সময়মতো পানি পান এবং খাবার খাওয়াটা খুবই প্রয়োজনীয়। সঠিক সময়ে পরিমাণমতো খাবার খেলে সারাদিন শরীর চাঙ্গা থাকে এবং ক্লান্তি কম অনুভূত হয়। সকালে উঠেই এক গ্লাস পানি পান করলে শরীর সতেজ হয়ে ওঠে। মোটকথা শরীরকে সুস্থ এবং কাজে ফিট থাকতে সময়মতো খাবার খাওয়া অত্যন্ত জরুরী। আর ব্যবসায়িক কাজের চাপ সামলানোর জন্য সুস্থ শরীরের বিকল্প নেই।

৫। বই বা পত্রিকা পড়া এবং নতুন কোনো আইডিয়া জেনারেট করার চেষ্টা করা:

শরীরকে সুস্থ রাখতে যেমন পরিমিত খাবারের প্রয়োজন ঠিক তেমনি মনকে সুস্থ রাখতে বই পড়া অপরিহার্য। বই মানুষের জ্ঞানের পরিধিকে বিস্তৃত করে। মানুষের আত্মাকে ছেঁকে পরিষ্কার করে। উদ্যোক্তাদের জন্য নিয়মিত বই পড়া অনেক প্রয়োজনীয়। ব্যবসার ক্ষেত্রে নতুন নতুন আইডিয়া জেনারেট করতে, বিশ্বের পারিপার্শ্বিক অবস্থার খবরাখবর রাখতে বা সৃজনীশক্তি বৃদ্ধিতে একজন উদ্যোক্তার নিয়মিত বই বা পত্রিকা পড়া দরকার। তাই উদ্যোক্তাদের দিনের শুরুটাই করা উচিত বই বা পত্রিকা দিয়ে।

আবার ব্যবসার ক্ষেত্রে নতুনত্ব আনাটা অপরিহার্য। অন্যান্য প্রতিযোগীদের থেকে এগিয়ে থাকতে নতুন নতুন স্ট্র্যাটেজির প্রয়োগ একজন উদ্যোক্তাকে সফল করে তোলে। বড় বড় উদ্যোক্তাদের জীবনে সফল হবার মূলমন্ত্রও এটাই। এজন্য বিভিন্ন সোর্স থেকে আইডিয়া নিয়ে নিজের ব্যবসায় প্রয়োগ করার চেষ্টা করতে হবে। সকালবেলার সময়টায় ব্রেইন খুব এ্যাকটিভ থাকে। এজন্য এ সময়টাতেই ব্যবসা সংক্রান্ত এধরনের বিভিন্ন ফলদায়ক আইডিয়া বের করার চেষ্টা করতে হবে।

পরিশেষে:

উদ্যোক্তা জীবন কখনই সহজ নয়। কঠোর পরিশ্রম এবং নিয়মানুবর্তিতা মেনে চলার মাধ্যমেই কেবল সফলতা পাওয়া সম্ভব। এর জন্য দিনের শুরুটা অবশ্যই ফলপ্রসূ হতে হবে। নিয়মিত ঘুম থেকে জেগে উঠেই যদি এই ৫টি অভ্যাস গড়ে তোলা যায় তাহলে শরীর, মন, কাজ সবকিছুই সুষ্ঠু ও সুন্দর হতে বাধ্য।

FAQ:

১। উদ্যোক্তাদের ঘুম থেকে জেগে ওঠার সঠিক সময় কখন?

খুব ভোরে ঘুম থেকে ওঠা শরীর ও মনের জন্য অনেক উপকারী। সকালের ঠাণ্ডা প্রকৃতি সারাদিনের কাজের শক্তি জোগায়। মনকে প্রশান্ত করে। এছাড়া খুব ভোরে উঠে সকালটা শুরু করলে কাজ করার অনেক সময় পাওয়া যায়। উদ্যোক্তাদের ক্ষেত্রে এ বিষয়টা অনেক গুরুত্বপূর্ণ।

 ২। উদ্যোক্তাদের রাতে কখন ঘুমোতে যাওয়া উচিত?

বিশ্বের সফল উদ্যোক্তাদের দৈনন্দিন জীবনের রুটিনে দেখা যায় তারা রাতে খুব তাড়াতাড়ি ঘুমিয়ে পড়েন এবং খুব সকালে ঘুম থেকে উঠেন। শরীর এবং মনকে সুস্থ রেখে ব্যবসায়িক কাজকর্ম চালিয়ে যেতে উদ্যোক্তাদের রাতে অন্তত ১২টার মধ্যে ঘুমিয়ে পড়া উচিত।

৩। বিশ্বের সবচেয়ে সফল উদ্যোক্তাদের দৈনন্দিন সকালের রুটিন কেমন?

বিল গেটস, মার্ক জুকারবার্গ, স্টিভ জবসসহ বিশ্বের সবচেয়ে সফল উদ্যোক্তারা একটি নিয়মিত রুটিন অনুসরণ করে চলেন। তাঁরা ভোরে ঘুম থেকে উঠেন, ব্যায়াম করেন, সকালের খাবার খান, দিনের কাজের তালিকা তৈরিসহ সকালের যাবতীয় সকল কাজ শেষ করেন।

৪। উদ্যোক্তাদের নিয়মিত রুটিন কেন প্রয়োজন?

অন্যান্য পেশাজীবীদের থেকে উদ্যোক্তাদের কাজের পরিমাণ অনেক বেশি থাকে। কাজের চাপ বেশি থাকায় তারা অনেক সময়ই অনেক কাজ গুছিয়ে করতে পারেন না অথবা ভুলে যান। কিন্তু উদ্যোক্তাদের যদি একটি নির্দিষ্ট রুটিন থাকে তাহলে এই কাজগুলো করতে অনেকটাই সহজ হয়ে যায় এবং গুছিয়ে করা যায়। আবার নিয়মিত রুটিন অনুসরণে নিজের ব্যক্তিজীবনের বিভিন্ন কাজও সঠিকভাবে করা সম্ভব হয়।


More Share, More Care!

Leave a Reply Cancel reply