Uddokta.com

উদ্যোগের আদ্যোপান্ত

আপনার ব্যবসার জন্য কেন একটি ওয়েবসাইট দরকার?

More Share, More Care!

বর্তমান যুগে সকল কার্যক্রম সম্পন্ন হচ্ছে ইন্টারনেট ব্যবহারের মাধ্যমে। আর এই ইন্টারনেট জগতে একটি বড় উপাদান হিসেবে কাজ করছে ওয়েবসাইট। অধিকাংশ ব্যবসায় প্রতিষ্ঠান ওয়েবসাইট ভিত্তিক হয়ে গিয়েছে। এক সমীকরণ থেকে জানা যায় বর্তমান বিশ্বে ১.৭ বিলিয়ন অর্থাৎ ১৭০ কোটি ওয়েবসাইট রয়েছে। যা পরবর্তী সময়ে আরো বৃদ্ধি পাবে। 

তাই আপনি যদি একটি ব্যবসা প্রতিষ্ঠানের মালিক হয়ে থাকেন তাহলে অবশ্যই আপনার ব্যবসায় প্রতিষ্ঠানে প্রসার বৃদ্ধি করার জন্য একটি ওয়েবসাইট প্রয়োজন। কিন্তু আপনি বুঝতে পারছেন না কেন, কিভাবে ওয়েবসাইট কাজে লাগতে পারে। তাই আপনার ব্যবসায়ের জন্য কেন একটি ওয়েবসাইট দরকার? এই সম্পর্কে আলোচনা করব।

প্রতিদিন একজন মানুষের ২৪ ঘন্টা সময়ের মধ্যে অধিকাংশ সময় ইন্টারনেটের সাথে সংযুক্ত থাকে। আর ইন্টারনেট ব্যবহারের মাধ্যমে আমরা যে সকল সাইটে প্রদর্শন করি তা মূলত এক একটি ওয়েবসাইট। 

আর এই ওয়েবসাইটগুলোর কল্যাণে আমরা বিশ্বকে আরো কাছ থেকে উপলব্ধি করতে পারি এবং জানতে পারি। এছাড়া ক্রেতা হিসেবে ক্রয় বিক্রয় করার জন্য এখন বর্তমানে ওয়েবসাইটের মাধ্যমে ঘরে বসে কেনাকাটা করা যায়। তাই প্রতিটি ব্যবসায়ীর উচিত ওয়েবসাইট ভিত্তিক ব্যবসায়ী গঠন করা এবং ব্যবসায়ী প্রসার বৃদ্ধিতে সহায়তা করা। 

ওয়েবসাইট কি?

ইন্টারনেট ব্যবহারের মাধ্যমে পৃথিবীর যে কোন প্রান্ত হতে যখন নির্দিষ্ট কোন সার্ভারে রাখা ওয়েব পেজ, অডিও, ভিডিও, বিভিন্ন তথ্য ও ছবি সম্পর্কে জানা যায় তখন সেটিকে ওয়েবসাইট বলা হয়। 

যখন নির্দিষ্ট কোন ব্রাউজার হতে যেকোনো একটি ওয়েব এড্রেসে গিয়ে সার্চ করি এবং নির্দিষ্ট অ্যাক্সিস এ প্রবেশের জন্য চেষ্টা করে থাকি এবং সেবা পেয়ে থাকি মূলত সেটি ওয়েবসাইটের কল্যাণে হয়ে থাকে। মূলত সার্চকিত ওয়েবসাইটটি ওয়েব সার্ভার হতে এইচটিএমএল প্রটোকলের মাধ্যমে ওয়েবসাইটের সকল ফাইল একত্র হয়ে এইচটিএমএল ডকুমেন্ট আকারে ওয়েবসাইট ভিজিটরের সামনে প্রদর্শিত হয়।

উদাহরণস্বরূপ, সকলেই ফেসবুকের নাম শুনেছি এবং ফেসবুক একাউন্ট ব্যবহার করছি। যখন ব্রাউজারে গিয়ে ফেসবুক লিখে সার্চ করি তখন ফেসবুকের ওয়েবসাইট চলে আসে এবং সেই ওয়েবসাইটে প্রবেশের মাধ্যমে ফেসবুকের ওয়েবসাইট দেখতে পাই। সুতরাং এটি মূলত একটি ওয়েবসাইট। 

তবে ওয়েবসাইট এর ধরন রয়েছে। একেক ধরনের ব্যবসায়ের জন্য একেক রকম ওয়েবসাইট হয়ে থাকে। তাই আপনার ব্যবসায়ের জন্য ওয়েবসাইট আপনার ব্যবসায়ের ধরণ অনুসারী হবে।

ওয়েবসাইট কিভাবে কাজ করে 

এখন হয়তো ভাবছেন তাহলে ওয়েবসাইট কিভাবে কাজ করে থাকে। ওয়েবসাইটের কার্যক্রম খুব সহজে একটি বিষয় তবে প্রতিনিয়ত যেভাবে ইন্টারনেটের ব্যবহার আপডেট হচ্ছে এতে করে ওয়েবসাইটের ব্যবহার আরো সহজ হয়ে উঠছে। 

খন একটি ওয়েবসাইট তৈরি করা হয় তখন ওয়েবসাইটের সকল ফাইলসমূহ একটি ফিজিক্যাল হোস্টিং সার্ভারে জমা থাকে। মূলত হোস্টিং সার্ভারে একটি ওয়েবসাইটের সকল কোড থেকে শুরু করে সকল ফাইল সংরক্ষণ করে রাখা থাকে।

ব্যবহারকারীরা যাতে করে সহজেই একটি ওয়েবসাইটের প্রবেশ করতে পারে অর্থাৎ এক্সেস করতে পারে তার জন্য প্রতিটি ওয়েবসাইটের একটি করে আইপি এড্রেস থাকে। এই আইপি এড্রেস ক্রয় করে নিতে হয় হোস্টিং সার্ভার হতে। তবে হোস্টিং সার্ভার হতে যে আইপি এড্রেস দেয়া হয় সেটি মূলত মনে রাখা অনেক কঠিন একটি বিষয়। তাই ওয়েবসাইটের এড্রেস মনে রাখার জন্য ওয়েবসাইটের ডোমেইন নেম ক্রয় করতে হয়। 

সুতরাং ব্যবহারকারীরা যখন ওয়েবসাইটে প্রবেশ করে তখন মূলত ডোমেইন নেম লিখে সার্চ করার ফলে হোস্টিং সার্ভার যায় এবং তখন ওয়েবসাইটের লেআউট, ফাইল ব্রাউজার গ্রহণ করে থাকে তখন ব্যবহারকারী ডিভাইসে ওয়েবসাইট প্রদর্শন হয়। মূলত এভাবেই ওয়েবসাইট কাজ করে থাকে।

আপনার ব্যবসায়ের জন্য কেন একটি ওয়েবসাইট দরকার 

বর্তমানে প্রতিটি ব্যবসায়ের প্রতিষ্ঠানের জন্য একটি ওয়েবসাইট থাকা উচিত। কিন্তু কেন আপনার ব্যবসায়ীর জন্য একটি ওয়েবসাইট প্রয়োজন। আর সে সকল কারণগুলো হচ্ছে-

আপনার যদি একটি ব্যবসায় প্রতিষ্ঠান থাকে এবং সেটি যদি একটি ওয়েবসাইট থাকে তাহলে সেখানে আপনার ব্যবসায়ের সকল ইনফরমেশন দেয়া থাকবে। মূলত একটি ওয়েবসাইট আপনার ব্যবসায়ের ডিজিটাল বিজনেস কার্ড হিসেবে কাজ করবে। সমস্ত বিশ্বের কাছে আপনার ওয়েবসাইটে দেয়া তথ্য সহজেই পৌঁছে দিতে পারবেন। 

একটি ব্যবসা প্রতিষ্ঠান ওয়েবসাইট ভিত্তিক হলে সেই ব্যবসায় প্রতিষ্ঠানে অর্থ উপার্জন অফলাইনের তুলনায় অনলাইনে বেশি হয়ে থাকে। অন্য কারণ অফলাইনে ব্যবসায় প্রতিষ্ঠানগুলো সকল মানুষের কাছে পরিচিতি লাভ করতে পারে না। কিন্তু অনলাইনে ব্যবসায় প্রতিষ্ঠানগুলো সকল মানুষের কাছে অল্প সময় পরিচিতি লাভ করতে পারে এবং অর্থ উপার্জনে সহায়তা লাভ করতে পারে।

একটি ওয়েবসাইট থাকার কারণে একটি ব্যবসা প্রতিষ্ঠানের ক্রয় বিক্রয় বৃদ্ধি পায়। কারণ যখন একটি ওয়েবসাইট থাকে তখন ক্রেতাদের মধ্যে বিশ্বাস তৈরি হয় এবং সেই পণ্যের ক্রয়ের প্রবণতা বৃদ্ধি পায়। 

সুতরাং এ ধরনের বিভিন্ন কারণে একটি ব্যবসায়ের প্রতিষ্ঠানের জন্য ওয়েবসাইট প্রয়োজন। তবে আপনি যদি ব্যবসায় প্রতিষ্ঠানের জন্য একটি ওয়েবসাইট থাকার সুবিধাগুলো জানতে পারেন তাহলে আপনি আরো পরিষ্কার ধারণা অর্জন করতে পারবেন। 

আপনার ব্যবসার জন্য ওয়েবসাইট থাকার সুবিধা

আপনার ব্যবসার জন্য ওয়েবসাইট থাকার ফলে আপনি যে সকল সুবিধা গুলো পাবেন। 

অনলাইন থেকে অর্থ উপার্জন

একটি ওয়েবসাইট থাকলে সেখান থেকে বিভিন্ন উপায় হতে আয় করা সম্ভব। বিশেষ করে ওয়েবসাইটে কি রকম ভিজিট হচ্ছে তার ওপর, আপনার ওয়েবসাইট গুগল রেংকিং এর ওপর, গুগল এডসেন্স,  এফিলিয়েট মার্কেটিং, বিভিন্ন ধরনের এড ইত্যাদি এ সকল বিষয়ের ওপর ওয়েবসাইট থেকে আয় করা যায়। তাই আপনার ব্যবসায়ের জন্য যদি একটি ওয়েবসাইট থাকে তাহলে ব্যবসায়ের সেবা আদান-প্রদান ব্যতীত এই ধরনের বিষয়গুলোর জন্য আপনার অর্থ উপার্জন হবে।

অনলাইন ব্র্যান্ড তৈরি করা

একটি ব্যবসা প্রতিষ্ঠানের যদি ওয়েবসাইট থাকে তাহলে সেটি ব্র্যান্ড হিসেবে পরিচিতি লাভ করতে পারে এবং সেখান থেকে আয় করার উপায় অনেকাংশে সহজ হয়ে যায়। কারণ আপনার ব্যবসায় যতই ছোট বা বড় হোক না কেন আপনার ব্যবসায়ের একটি ওয়েবসাইট রয়েছে এটি মানুষকে আকর্ষণ করে। সুতরাং আপনার ব্যবসায়ীকে একটি ব্র্যান্ড হিসেবে পরিচিতি লাভ দেয়ার উদ্দেশ্যে একটি ওয়েবসাইট তৈরি করে নেয়া উচিত।

ব্যবসায়ের বিজ্ঞাপনের জন্য

আপনার ওয়েবসাইটে ধরুন যে রকম হোক না কেন সেখানে যদি আপনি নিয়মিত ব্যবসায়িক বিজ্ঞাপন দিয়ে থাকেন তাহলে সেখান থেকে আপনি অর্থ উপার্জন করতে পারবেন। এছাড়া আপনার ব্যবসায়ের আকার ছোট হলেও আপনার একটি ওয়েবসাইট থাকার কারণে সহজেই ব্যবসায়ের প্রচার করা সম্ভব। সুতরাং আপনার ব্যবসায়ীর ধরন যেরকম হোক না কেন আপনার একটি ওয়েবসাইট থাকার কারণে নিজের ব্যবসায়ের বিজ্ঞাপন খুব সহজেই চালাতে পারেন।

ব্যবসায় বিশ্বব্যাপী প্রসার

বিশ্বের কাছে আপনার ব্যবসায়ের সকল তথ্য অর্থাৎ আপনার ব্যবসায়ের সেবা তুলে ধরার জন্য একটি ওয়েবসাইট অনেক বড় ভূমিকা পালন করে থাকে। কারণ বিশ্বের যে কোন প্রান্ত হতে ওয়েবসাইটে প্রবেশ করা যায় এবং সহজেই আপনার ব্যবসায়ের জন্য বিশ্বব্যাপী টার্গেট অডিয়েন্স তৈরি করে নিতে পারবেন। মূলত একটি ওয়েবসাইটের মাধ্যমে বিশ্বের কাছে আপনার দক্ষতা, যোগ্যতা এবং আপনার ব্যবসায়ের সেবা তুলে ধরতে পারবেন।

বিশ্বাস অর্জন

অনলাইনে পণ্য ক্রয়ের জন্য বেশিরভাগ ক্রেতারা বিভিন্ন ধরনের খারাপ মনোভাব নিয়ে চিন্তিত থাকেন। তারা ভাবেন যে এখান থেকে আমরা পণ্য ক্রয় করলে কি ঠকে যাব বা আমরা কি আমাদের কাঙ্ক্ষিত পণ্যটি বা সেবা পাব? তাই যদি একটি ব্যবসায় প্রতিষ্ঠান অর্থাৎ বিশেষ করে ই-কমার্স বিজনেস গুলোতে যদি একটি ওয়েবসাইট থাকে তাহলে অবশ্যই সেই ব্যবসায়ের বিশ্বাস অর্জন খুব সহজ হয়ে যায়।

আপনি ফেসবুক পেজ বা যেকোন সোশ্যাল মিডিয়ার মাধ্যমে যতটা বিশ্বাস অর্জন করতে পারবেন ঠিক তার অনেক গুণ বেশি ক্রেতাদের বিশ্বাস অর্জন করতে পারবেন একটি ওয়েবসাইট থাকার জন্য।

ক্রেতার বৃদ্ধি

যেহেতু একটি ওয়েবসাইট থাকার কারণে ক্রেতাদের সহজেই বিশ্বাস অর্জন করা সম্ভব সেহেতু সেখানে ক্রেতার সংখ্যা বৃদ্ধি পায় এবং বিক্রয় বৃদ্ধি পায়। কারণ ব্যবসায়ীরা যখন ওয়েবসাইট ভিত্তিক ব্যবসায়ের কার্যক্রম পরিচালনা করে তখন তাদের অডিয়েন্স থাকে বিশ্বের সকল মানুষ। তাই এখানে অনৈতিকতার কিছু থাকে না ফলে ক্রেতাদের সংখ্যা বৃদ্ধি পায় এবং বিক্রয় বৃদ্ধি পায়।

সার্চ ইঞ্জিন (SERP)

Google হচ্ছে বিশ্বের সবচেয়ে বড় সার্চ ইঞ্জিন। যেখানে এর ব্যবহারকারীর সংখ্যা অধিক। আপনার ব্যবসায়ের প্রতিষ্ঠানের যদি একটি ওয়েবসাইট থাকে এবং সেই ওয়েবসাইটটি যদি এই বড় সার্চ ইঞ্জিনের আওতাভুক্ত হয় তাহলে আপনার ব্যবসায়ের আকার কেমন হবে ভেবে নিতে পারেন।

আর এই বিশাল অংশে নিজেকে জায়গা করে নেয়ার জন্য সঠিক এসিও করতে হবে এবং ওয়েবসাইটে সব সময় একটিভ থাকতে হবে। তাই সার্চ ইঞ্জিন রেজাল্ট পেজে নিজেকে জায়গা করে নেয়ার জন্য এসইও করা উচিত।

নতুন ব্যবসায় তৈরি

আপনার ব্যবসায়ীর জন্য যদি একটি ওয়েবসাইট থাকে এবং সেই ওয়েবসাইটের ভিজিটরের সংখ্যা প্রতিনিয়ত বৃদ্ধি পেতে থাকে তাহলে সেখান থেকে আপনি নতুন উদ্যোগে অন্য একটি ব্যবসায়ীর সংগঠন তৈরি করে নিতে পারেন। মূলত আপনি একটি সার্ভিস দেয়ার পাশাপাশি অন্য একটি সার্ভিস দিতে পারেন এবং ক্রেতাবিধি করতে পারেন। 

যেমনঃ আপনার যদি একটি ই-কমার্স বিজনেসের ওয়েবসাইট থাকে তাহলে সেখানে যে সকল পণ্যগুলো ক্রয় বিক্রয় করা হয় সেই সকল পণ্য সম্পর্কে রিভিউ কন্টেন্ট তৈরি করতে পারেন। ফলে সেখান থেকে আপনি বাড়তি অর্থ উপার্জন করতে পারবেন। এভাবে আপনি একটি নতুন ব্যবসায় তৈরি করে নিতে পারেন। 

সহজে সেবা প্রদান

আপনার ব্যবসায়ের একটি ওয়েবসাইট থাকলে সেখানে সহজেই আপনি আপনার ব্যবসায়ের সকল সেবা মানুষের কাছে পৌঁছে দিতে পারেন। যেমনঃ আপনার যদি গ্রাফিক ডিজাইনের দক্ষ হয়ে থাকেন তাহলে আপনার একটি ওয়েবসাইটের মাধ্যমে গ্রাফিক ডিজাইন সম্পর্কিত যত সার্ভিস আছে সেগুলো প্রদান করতে পারবেন। এতে করে আপনার ওয়েবসাইট ব্র্যান্ড হিসেবে কাজ করবে এবং সহজেই সেবা প্রদান করতে পারবেন।

দক্ষতা অর্জন 

একটি ওয়েবসাইট থাকার কারণে আপনি ইন্টারনেট দুনিয়াতে নতুন নতুন দক্ষতা অর্জন করতে পারবেন। কারণ প্রতিদিন নিজেকে আপডেট রাখার জন্য নতুন কিছু শিখতে হবে এবং সেটি আপনার ওয়েবসাইটে প্রয়োগ করতে হবে। যেমনঃ আপনার ওয়েবসাইট যদি ওয়ার্ডপ্রেস হতে তৈরী হয়ে থাকে তাহলে আপনি ওয়ার্ডপ্রেস সম্পর্কে অনেক কিছু জানতে পারবেন। ভবিষ্যতে ওয়ার্ডপ্রেসের প্রতি এই দক্ষতা অর্জন আপনাকে অনেক বড় কিছু করতে সাহায্য করবে। পরবর্তী সময়ে আপনি ব্যবহারের মাধ্যমে অন্যদের ওয়েবসাইট তৈরি করতে পারবেন এবং অর্থ উপার্জন করতে পারবেন।

সুতরাং আপনার ব্যবসায়ের জন্য একটি ওয়েবসাইট থাকলে আপনি অপরি উক্ত এ বিষয়ের ওপর সুবিধা ভোগ করতে পারবেন এবং অন্যান্য আরো অনেক সুবিধা ভোগ করার পাশাপাশি প্রয়োজন মেটাতে পারবেন।

FAQ

একটি ওয়েবসাইট ব্র্যান্ড হিসেবে কখন পরিচিতি লাভ করতে পারেন?

আপনি যখন আপনার ব্যবসায়ের জন্য একটি ওয়েবসাইট তৈরি করবেন এবং সেই ওয়েবসাইটটি সকলের মাঝে যখন পরিচিতি লাভ পাবে তখন আপনার ওয়েবসাইটটি ব্র্যান্ড হিসেবে পরিচিতি লাভ করতে পারবন

অনলাইনে পণ্য কেনাবেচার জন্য ওয়েবসাইট কতটা গুরুত্বপূর্ণ?

অনলাইনে পণ্য কেনাবেচার জন্য ক্রেতাদের মধ্যে বিশ্বাস গড়ে তোলার জন্য একটি প্রতিষ্ঠানে ওয়েবসাইট থাকা গুরুত্বপূর্ণ।

SERP এর পূর্ণরূপ কি?

Search Engine Result Page.

শেষ কথা

ইতিমধ্যে আপনি জানতে পেরেছেন আপনার ব্যবসার জন্য কেন একটি ওয়েবসাইট দরকার। তাই ওয়েবসাইট সম্পর্কে ধারণা নিয়ে ব্যবসায় প্রসার বৃদ্ধি করার জন্য এবং অধিক মুনাফা অর্জন করার উদ্দেশ্যে আপনার ব্যবসায়ের একটি ওয়েবসাইট তৈরি করা উচিত। কারণ ভবিষ্যতে ওয়েবসাইটের চাহিদা আরো বেশি বৃদ্ধি পাবে এবং সকল ব্যবসায়িক কাজ বা অফিসিয়াল কাজ ওয়েবসাইট ভিত্তিক হয়ে যাওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে। সুতরাং যেকোনো সার্ভিস মানুষের কাছে পৌঁছে দেয়ার জন্য ডিজিটাল যুগে ওয়েবসাইটের ব্যবহার তুলনাহীন। আপনি যদি একজন ব্যবসায়ী হিসেবে ব্যবসায়ের সম্প্রসারের জন্য ওয়েবসাইট সম্পর্কে আরো অন্যান্য বিষয়ে জানতে চান তাহলে অবশ্যই কমেন্ট করে জানাতে পারেন।


More Share, More Care!

Leave a Reply Cancel reply